মেনু নির্বাচন করুন
Text size A A A
Color C C C C
পাতা

উপজেলার ঐতিহ্য

বরিশাল শহর থেকে  দক্ষিণে  ২১ কি: মি: দূরে  অবস্থিত বাকেরগজ্ঞ উপজেলা ।  বরিশাল জেলার অন্তর্ভূক্ত  এই উপজেলার উপর দিয়ে চলে গেছে বরিশাল-পটুয়াখালী মহাসড়ক। শায়েস্তা খা’র পুত্র বুজুর্গ উমেদ খাঁ, আগা বাকের খাঁ, দয়াল চৌধুরী, বার আউলিয়া, বৈরাম খাঁ’র স্মৃতি বিজড়িত উপজেলা শহরটি তুলাতলী নদীর তীরে অবস্থিত। ১৮৭৪ খ্রি: বাকেরগঞ্জকে থানা ঘোষনা করা হয় । বহু পীর আওলীয়ার মাজার, প্রাচীন জমিদার আমলের দালান, মঠ, মুঘল  আমলের মসজিদ, মন্দির, গির্জা ইত্যাদি প্রাচীন ঐতিহ্যের স্থাপত্য শিল্পের নিদর্শন রয়েছে এই জনপদে ।  

 

বাকেরগজ্ঞ থেকে মাত্র ০২ কি:মি: উত্তরে  বরিশাল-পটুয়াখালী মহাসড়কের পূর্বপাশে বার আউলিয়ার দরগা/মাজার অবস্থিত। সমস্ত মাজারটিকে একটি বিশাল পাকুর গাছ এর শিকড় অদ্ভুতভাবে জড়িয়ে আছে,দেখলে মনে হবে প্রকৃতি তার আপন দায়িত্বেই বুঝি ঐতিহ্যকে লালন করেছে, যা দেখতে খুবই দৃষ্টি নন্দন। বহু দর্শনাথী ও পূন্যার্থীগণ মনের বাসনা পূরণার্থে এখানে মানত করেন এবং মাজার জিয়ারত করে থাকেন ।

 

বার আউলিয়ার দরবারের ২০০ গজ  উত্তরে  বরিশাল-পটুয়াখালী মহাসড়কের পূর্বপাশে অবস্থিত বৈরাম খাঁ’র  দীঘি। বৈরাম খাঁ নামীয় একজন নবাব বা আগা বাকেরের কর্মচারী এই দীঘিটি  খনন করেন । দীঘির পাড়েই গজনী শাহ ধ্যানে মগ্ন থাকতেন বলে এ  দীঘিকে  গজনীর দীঘিও বলা হয়।

 

রংগশ্রী ইউনিয়নের নন্দপাড়া গ্রামে বর্তমানে ঘোষবাড়ী সংলগ্ন বহুল আলোচিত দয়াল চৌধুরীর বাড়ী যেখানে  নবাবী আমলে নির্মিত একটি  ইটের পুল, কালী মন্দির, এখনো ঐতিহ্য বহন করছে । আরও রয়েছে বাকেরগঞ্জ বন্দরে শায়েস্তা খানের পুত্র বুজুর্গ উমেদ খান নির্মিত গোলাবাড়ী  ।

 

বাকেরগজ্ঞ সদর থেকে  মাত্র  ৫ কি: মি: দূরে  শ্রীমান্তপুর  খালের তীরে পাদ্রীশিবপুর  অবস্থিত । এখানে সেন্ট আলফ্রেড  মাধ্যমিক  বিদ্যালয়  ও  ঐতিহ্যগত দর্শনীয় গীর্জা রয়েছে ।

 

এ উপজেলায়  কলসকাঠী ইউনিয়নের কলসকাঠী বন্দরে ১৮শ শতকের শুরুর দিকে নির্মিত হয় কলসকাঠী জমিদার বাড়ী । ১৬৯৯খ্রি: মুর্শিদকুলী খাঁ এবং সুবেদার আজিমউসশানের নিকট থেকে জনৈক বল্লভ আওরঙ্গপুর  পরগনার জমিদারী লাভ করেন।  ১৭০২ খ্রি: গারুড়িয়ার পৈতৃক নিবাস ছেড়ে কলসকাঠীতে  বসতি স্থাপন করেন। বাড়িটির নির্মাণ কৌশল এবং কারুকাজ অপূর্ব রুচিশীলতার পরিচয় বহন করে। এখানে দূর্গা মন্দির ছিল । বর্তমানে মনসা মন্দির আছে । এখানে বার্ষিক মেলা হয় । মেলায় দেশী বিদেশী বহু লোকের সমাগম হয়।

এছাড়া শিয়ালঘুনি নসরত গাজীর মসজিদ (সুলতান নসরত শাহ মসজিদটি নির্মাণ করেন)।পিলখানার মুসা খানের মসজিদ (দুধল ইউনিয়নের পিলখানা গ্রামে) বর্তমান বড় বাড়ীতে ইশা খাঁ আমলে নির্মিত মুসা খার মসজিদটি অবস্থিত )।  চরামদ্দির চৌধুরী বাড়ী, শ্যামপুর নাটু বাবুর বাড়ী, মেদীগঞ্জ শাহী জামে মসজিদ, দাওকাঠী তালুকদার বাড়ী মসজিদ, রুনসি কুন্ডুপাড়া সার্বজনীন শ্রী শ্রী দূর্গা মন্দির,  যা অত্র অঞ্চলের প্রাচীনতম ঐতিহ্য বহন করে। আরও রয়েছে কলসকাঠী  ও  মহেশপুরের ঐতিহ্যবাহী পালপাড়া যা মৃৎ শিল্পের জন্য বিখ্যাত ।